• 34

কুড়িগ্রামে বাড়ছে নদ-নদীর পানি, দেখা দিয়েছে ভাঙন

কুড়িগ্রামে বাড়ছে নদ-নদীর পানি, দেখা দিয়েছে ভাঙন

চলতি বছর দীর্ঘমেয়াদি বন্যা ও নদী ভাঙনের সম্মুখীন হয়েছে কুড়িগ্রামবাসী। এরই মধ্যে জেলায় ফের বাড়ছে নদ-নদীর পানি। একই সঙ্গে কুড়িগ্রাম সদরের ভোগডাঙ্গা ইউনিয়নে নদী ভাঙন দেখা দিয়েছে।


বুধবার (১৬ সেপ্টেম্বর) দুপুরে সরেজমিনে গিয়ে এমন চিত্র দেখা গেছে।



মূলত কুড়িগ্রাম জেলার মধ্যে ১৬টি নদ-নদী রয়েছে। নদী ভাঙন এ জেলার অন্যতম প্রধান সমস্যা। প্রতিবছর অব্যাহত ভাঙনে শতশত বাড়ি-ঘর নদীগর্ভে বিলীন হয়। নদীগর্ভে হারিয়ে যায় শত শত হেক্টর আবাদি জমি। নদী ভাঙনে প্রতিনিয়তই ছোট হয়ে আসছে এ জেলার মানচিত্র। পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকায় প্লাবিত হচ্ছে নতুন নতুন নিম্নাঞ্চলসহ অনেক এলাকা।


কুড়িগ্রাম সদরের ভোগডাঙ্গা ইউনিয়নের জগমনের চর এলাকার মোসলেম, খালেদা বেগম ও মজনা বেগম জানান, হঠাৎ পানি বৃদ্ধির কারণে নদী ভাঙন শুরু হয়েছে। মঙ্গলবার (১৫ সেপ্টেম্বর) রাতে তাদের বাড়ি-ঘর নদী গর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। এখন থাকার মতো তাদের আর কোনো জমি নাই।


কুড়িগ্রাম সদরের ভোগডাঙ্গা ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান মো. সাইদুল রহমান জানান, ধরলার পানি বৃদ্ধির কারণে তার ইউনিয়নের জগমনের চর এলাকার একটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়সহ প্রায় ৩৪টি বাড়ি নদী গর্ভে বিলীন হয়ে গেছে।


বুধবার (১৬ সেপ্টেম্বর) কুড়িগ্রাম পানি উন্নয়ন বোর্ডের তথ্য অনুযায়ী, ধরলা নদীর পানি বর্তমানে ২৬.৬৫ সেন্টিমিটার প্রবাহিত হচ্ছে। যা বিপৎসীমার ১৫ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। যার স্বাভাবিক অবস্থা ২৬.৫০ সেন্টিমিটার।


এ বিষয়ে কুড়িগ্রাম পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আরিফুল ইসলাম জানান, নদ-নদীগুলোতে আরও দুই-তিন দিন পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকতে পারে। তবে বড় ধরনের বন্যা হওয়ার আশঙ্কা নেই।


তিনি আরও জানান, ভাঙন কবলিত এলাকাগুলোতে জরুরি প্রতিরক্ষা কাজ হিসেবে বালু ভর্তি জিও ব্যাগ ফেলার কার্যক্রম শুরু হয়েছে।

আপনার মতামত লিখুন :