• 31

থটস অব রমাদান আলোচনা-১৮

ইসলামী শিক্ষা ও নৈতিকতা

ইসলামী শিক্ষা ও নৈতিকতা

থটস অব রমাদান আলোচনা-১৮ পর্ব

জাতিকে নৈতিক মানদণ্ডে রাখতে শিক্ষার সকল পর্যায়ে ইসলামী শিক্ষা বাধ্যতামূলক করা উচিত। জাতির ভাগ্যাকাশে বর্তমানে অনৈতিক কার্যক্রমের উর্ধগতি নিয়ন্ত্রণে বাংলাদেশের শিক্ষা ব্যবস্থায় ইসলামী শিক্ষাকে বাধ্যতামূলক করতে হবে। অন্যান্য ধর্মের জন্যও তাদের ধর্মীয় নৈতিক শিক্ষা বাধ্যতামূলক করতে হবে। বর্তমানে মাধ্যমিক পর্যায়ে ইসলামিক স্টাডিজ বাধ্যতামূলক তবে প্রস্তাবিত নীতিমালায় বিষয়টিকে পাবলিক পরীক্ষার বাইরে রাখা হয়েছে। 


পরীক্ষার বাইরের বিষয় হিসেবে শিখন পদ্ধতিতে কার্যকরী ফলাফল না আসার ব্যাপারে ইতিমধ্যেই অনেক গবেষক, শিক্ষাবিদ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন। সুতরাং বিষয়টি সংকোচিত নয় বরং প্রয়োজন হলে দু‘শো নম্বরের বিষয়ে রূপান্তর করার প্রস্তাব করছি। কথাগুলো বলছিলেন বাংলাদেশে স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্বের ইতিহাসের সাথে ওতপ্রোতভাবে জড়িত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. শামসুল আলম। দেশ মাতৃকার কাছে দায়বদ্ধতার কারণে বেশী করে ইসলামিক স্টাডিজকে শিক্ষা ব্যবস্থায় গুরুত্বারোপের পরামর্শ দেন।


থটস অব রমাদানের ১৮তম টকশোর আলোচনায় কথাগুলো অত্যন্ত সাবলীলভাবে ফুটিয়ে তুলেছেন ড. আলম। আলোচনায় সংযুক্ত হয়ে অপর আলোচক ড. সাদিক হোছাইন সৌদি আরবের শিক্ষা ব্যবস্থার প্রাথমিক থেকে বিশ্ববিদ্যালয় পর্যন্ত নৈতিক শিক্ষা দানের জন্য কিভাবে ইসলামিক স্টাডিজ পাঠদান করা হয় এর বিস্তারিত তুলে ধরেন। ৪৫ মিনিটের আলোচনায় ইসলামী শিক্ষা ও নৈতিকতার বিভিন্ন দিক, বাংলাদেশসহ বিশ্বমানবতার কল্যাণে ইসলামী শিক্ষার প্রয়োজনীয়তার কথা বারবার উঠে আসে। দীর্ঘ সময়ের জন্য জাতি হিসেবে টিকে থাকতে ইসলামের নৈতিক শিক্ষার আবহ সকল পর্যায়ে ছড়িয়ে দেওয়ার জন্য সম্মানিত দু‘জন আলোচক তাদের পরামর্শ প্রদান করেন।

আপনার মতামত লিখুন :