• 52

প্রবাসী মুক্তিযোদ্ধা

স্বাধীনতার ৫০ বছরে তাজুল ইমামের ভাবনা

স্বাধীনতার ৫০ বছরে তাজুল ইমামের ভাবনা

বীর মুক্তিযোদ্ধা তাজুল ইমাম

স্বাধীনতার ৫০ বছরে বাংলাদেশ। উদযাপন হচ্ছে সূবর্ণজয়ন্তী। দীর্ঘ পথচলায় কেমন আছে প্রিয় দেশ। আছে কতটা অর্জন; হারানোর ব্যথা। এ নিয়ে যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী বীর মুক্তিযোদ্ধাদের ধারাবাহিকভাবে মতামত তুলে ধরা হচ্ছে। এবারের আয়োজন তাজুল ইমামকে নিয়ে। 


পঞ্চাশ বছর একটি দেশের জন্য খুব বেশি সময় নয়। তবে অনেক মানুষের জন্য তা হয়তো দীর্ঘ সময়। আমি মনে করি ৫০ বছরে বাংলাদেশ উত্থানের নজির সৃষ্টি করেছে। পরে অনেকের জীবনে আর্থিক উন্নতি ঘটেছে। সেইসাথে পতন ঘটেছে রুচির চর্চার, মনন চর্চার, সংস্কৃতি চর্চার। এক শ্রেণির মানুষের অন্ধ ধর্মান্ধতা আমাদের পিছিয়ে দিয়েছে। যেমন পিছিয়ে দিয়েছে সামাজিক কূপমন্ডুকতা। তার মানে কি আমরা সার্বিকভাবে পিছিয়ে গেছি গত ৫০ বছরে? না আমাদের দেশে অনেক উদ্ভাবনার দ্বার খুলে গেছে। কৃষিতে অনেক গুরুত্বপূর্ণ কাজ হচ্ছে। সামাজিক অনেক ক্ষেত্রে আমরা এগিয়ে গেছি।


আমি মনে করি যে দেশের জন্য মাত্র ১৭ বছর বয়সে যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েছিলাম, সূবর্ণজয়ন্তীর এই মাহেন্দ্রক্ষণে আমার স্বপ্ন এই দেশটি আরও আলোকিত হয়ে উঠুক। বাংলাদেশের জ্ঞানদীপ্ত ব্যক্তিরা, ধর্মীয় স্কলাররা যেন একটি স্ট্যান্ডার্ড চালু করেন যাতে ধর্মের নামে হিংস্রতা লোপ পায়, ধর্মের অপব্যবহার বন্ধ হয়।


আমরা যখন যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়ি এবং দেশ যখন স্বাধীন করি তখন আমাদের সামনে রাষ্ট্রের ৪ টি মূলনীতি ছিল। সেই মূলনীতি এখনও হারিয়ে যায়নি। তার সব আলামত আছে। আমাদের কবেল তা সামনে নিয়ে আসতে হবে। প্রগতিশীল চিন্তার মানুষদের এগিয়ে আসতে হবে। দিকনির্দেশনা দিতে হবে। আরেকটি নতুন প্রজন্মই সূবর্ণজয়ন্তীর স্বপ্ন বাস্তবায়নকে এগিয়ে নেবে, বাংলাদেশকে একটি অসাম্প্রদায়িক রাষ্ট্রে পরিণত করতে।

আপনার মতামত লিখুন :