• 308

৮০ দেশে কোরআন উপহার পাঠিয়েছে তুরস্ক

৮০ দেশে কোরআন উপহার পাঠিয়েছে তুরস্ক

ইসলাম আল্লাহর নিকট একমাত্র মনোনীত ধর্ম। একইসঙ্গে পরিপূর্ণ জীবনবিধান। ইসলামের প্রধান ধর্মগ্রন্থ পবিত্র কোরআনে কারিম। যে তার জীবনকে কোরআনের আলোকে পরিচালিত করবে সে বহুমুখী সুখী জীবন লাভ করবে। আর পৃথিবীর সবাই যদি কোরআন মেনে নেয় তাহলে গোটা বিশ্বে শান্তিময় একটি পরিবেশ গড়ে ওঠবে।


আল্লাহ তায়ালা বলেন, ‘নিশ্চয় আল্লাহর পক্ষ থেকে তোমাদের কাছে এসেছে এক নূর এবং উজ্জ্বল কিতাবও। এর মাধ্যমে আল্লাহ সেসব লোককে শান্তির পথে পরিচালিত করেন, যারা তার সন্তুষ্টির পথে চলে। আর তিনি নিজ আদেশে তাদেরকে অন্ধকার থেকে বের করে আলোর দিকে নিয়ে যান এবং সরল সুদৃঢ় পথে তাদের পরিচালিত করেন’ (সুরা মায়েদা, আয়াত: ১৫-১৬)


কিন্তু পৃথিবীর এমনও দেশ ও অঞ্চল আছে, দারিদ্রতার কারণে সেখানের অসংখ্য মানুষ ইচ্ছা থাকার পরও পবিত্র কোরআন পড়তে পারে না। এজন্য তাদের প্রত্যেকের হাতে অন্তত এক একটি কোরআনের প্রতিলিপি পৌঁছে দেয়ার বিশেষ পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে তুরস্ক।


‘তোমার হাতে আমার উপহার পবিত্র কোরআন’ এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে ২০১৫ সাল থেকে দেশটির ধর্ম মন্ত্রণালয় এ প্রকল্প বাস্তবায়ন করে আসছে। তাদের বিশ্বাস- হয়তো তাদের এ ক্ষুদ্র প্রচেষ্টার মাধ্যমে পৃথিবী নৈতিক উন্নতির দিকে অগ্রসর হবে। সেই লক্ষ্যে ২০২০ সালের শেষ পর্যন্ত বিশ্বের অন্তত ৮০ টি দেশে প্রায় এক কোটি মুসলমানদের হাতে কোরআনের প্রতিলিপি পৌঁছে দিয়েছে তারা। বিতরণকৃত প্রতিলিপির সংখ্যা সর্বমোট ৯০ লাখ ৭৭ হাজার ১০১ কপি। আফ্রিকা ও এশিয়ার বিভিন্ন দেশে এসব প্রতিলিপি বিতরণ করা হয়।


তুর্কি মানব কল্যাণ সংস্থা ‘খাইরিয়্যাত’ জানিয়েছে, জেবুতি সহ আফ্রিকার বিভিন্ন দেশের মানুষ কোরআন পড়তে কাঠের তক্তা বা সিলেট ব্যবহার করে, তাদের এই কষ্ট অনুভব করেই তুর্কি প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়েব এরদোগানের বিশেষ উদ্যেগে পবিত্র কোরআনের কপি উপহার দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। তাদের এ কাজের প্রশংসা করেছে বিশ্বের বড় বড় ইসলামী স্কলার এবং গোটা বিশ্ব মানবতার জন্য তারা শুভকামনা জানিয়েছেন।

আপনার মতামত লিখুন :